প্রকাশ : ২৮ নভেম্বর, ২০১৭ ১৩:৪২:৫৮
১টি কুকুরের জীবন বাঁচাতে...!
বাংলাদেশ বাণী, অনলাইন ডেস্ক : অনেক সময় কোনো একজন মানুষ ভীষণ বিপদেও আর কাউকে পাশে পান না। সেখানে একটি কুকুরছানা তার জীবনমরণ লড়াইয়ে পাশে পেল ১৫ জন পুলিশ সদস্যকে।

আর এই পুলিশ সদস্যদের প্রাণান্তকর চেষ্টায় বেঁচে গেছে ওই কুকুরটির জীবন। ভারতের দক্ষিণ কর্ণাটকের বেঙ্গালুরুতে এই ঘটনা ঘটেছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে এনডিটিভি। বেঙ্গালুরুর ছোট্ট একটি কুকুরছানা সম্ভবত কৌতুহলের বশেই মাথা গলিয়ে দিয়েছিল প্লাস্টিকের তৈরি কলস আকৃতির একটি পাত্রে।

তারপর অযাচিত এই কৌতূহলই ডেকে আনে তার ভীষণ বিপদ। কারণ ওই পাত্রের ভেতরে আটকে যায় তার মাথা। কোনোভাবেই সেখান থেকে নিজেকে মুক্ত করতে পারছিল না সে। ধীরে ধীরে কমে আসতে থাকে অক্সিজেন। ফলে মাথা ছাড়ানোর জন্য ছটফট করতে থাকে অসহায় প্রাণিটি। সৌভাগ্যবশত এই দৃশ্য চোখে পড়ে এক পুলিশ সদস্যের।

কুকুরছানাকে উদ্ধারে তিনি এগিয়ে যান মানবতার খাতিরে। একে একে ১৫ জন পুলিশ সদস্য এসে হাজির হন উদ্ধার কাজে। এক সময় সবাই মিলে উদ্ধার করেন কুকুরছানাটিকে।

বেঙ্গালুরুর পুলিশ কর্মকর্তা অভিষেক গাওয়াল তার টুইটার অ্যাকাউন্টে এই পুরো ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন। তিনি জানান, উদ্ধারকাজের শুরুতেই ওই প্লাস্টিকের পাত্রে বাতাস চলাচলের জন্য একটি ছিদ্র করেন যেন কুকুরটি ঠিকমতো নিঃশ্বাস নিতে পারে। এরপর ধীরে ধীরে পাত্রটি কেটে কুকুরছানাটিকে মুক্ত করেন তাঁরা। এদিকে মুক্তি পেয়েই দৌড়ে পালায় কুকুরছানাটি। তবে সেখানেই ঘটনা শেষ হয়নি। পুলিশ সদস্যদের এই মহৎ কাজের প্রশংসায় গত দুদিন ধরে মুখর রয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। সবাই সেখানে বাহবা দিচ্ছেন পুলিশের এই মানবিক কাজকে।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • ২১ আগষ্টসহ বার বার এই দেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে চেয়েছিল ওরা...!২১ আগষ্টের জড়িতরা এখন কোথায়? বর্বরতম গ্রেনেড হামলার দিন পুলিশের ছত্রছায়ায় প্রাসাদে ঘুমাচ্ছেন নাফ সিমান্তের অধরা ইয়াবা গডফাদাররা !রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত টিম এখন ঢাকায়বিএনপি-জামায়তের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধুর জন্য জাতিসংঘে সদরদপ্তরে প্রথমবারের মতো জাতীয় শোক দিবসক্রস ফায়ারের মাঝেও মানব পাচার! থেমে নেই অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসারোববার কবি শামসুর রাহমানের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকীঢাকা-দিল্লীর সম্পর্ক এখন নতুন উচ্চতায় : বাংলাদেশ হাইকমিশনারছয় বছর বয়সেই ইসি'র স্মার্টকার্ডবঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাস : স্বাধীনতা বাঙ্গালীর সোনালী অর্জন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়ার যোগাযোগ ছিল : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে : আইনমন্ত্রী২২ আগস্ট শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বাঙালীর বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন জাতির জনক মাশরাফির অবসর নিয়ে দু'দিনের মধ্যেই আলোচনায় বসবে বিসিবিটুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদনবঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক চেষ্টা চলছে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে ‘কমিশন’ গঠনের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ও সর্বস্তরের জনতার বিনম্র শ্রদ্ধা
  • ২১ আগষ্টসহ বার বার এই দেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে চেয়েছিল ওরা...!২১ আগষ্টের জড়িতরা এখন কোথায়? বর্বরতম গ্রেনেড হামলার দিন পুলিশের ছত্রছায়ায় প্রাসাদে ঘুমাচ্ছেন নাফ সিমান্তের অধরা ইয়াবা গডফাদাররা !রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত টিম এখন ঢাকায়বিএনপি-জামায়তের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধুর জন্য জাতিসংঘে সদরদপ্তরে প্রথমবারের মতো জাতীয় শোক দিবসক্রস ফায়ারের মাঝেও মানব পাচার! থেমে নেই অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসারোববার কবি শামসুর রাহমানের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকীঢাকা-দিল্লীর সম্পর্ক এখন নতুন উচ্চতায় : বাংলাদেশ হাইকমিশনারছয় বছর বয়সেই ইসি'র স্মার্টকার্ডবঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাস : স্বাধীনতা বাঙ্গালীর সোনালী অর্জন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়ার যোগাযোগ ছিল : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে : আইনমন্ত্রী২২ আগস্ট শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বাঙালীর বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন জাতির জনক মাশরাফির অবসর নিয়ে দু'দিনের মধ্যেই আলোচনায় বসবে বিসিবিটুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদনবঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক চেষ্টা চলছে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে ‘কমিশন’ গঠনের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ও সর্বস্তরের জনতার বিনম্র শ্রদ্ধা
উপরে