প্রকাশ : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০২:৩৮:৪৮
জীবন্ত কবর ! অতপর...!
বাংলাদেশ বাণী, ডেস্ক রিপোর্ট : আমরা ছোটবেলা থেকে কমবেশি শুনে এসেছি এক সময় নাকি মেয়েদেরকে জীবন্ত কবর দেওয়া হতো। কিন্তু আমরা জানতাম শুধু মানুষই এই পিশাচার কাজটি করতো। কিন্তু এখন মানুষ নয় খোদ ভাল্লুক জীবন্ত কবর দিয়েছিল নাতানিয়া প্যাস্টারনেক নামক এক মহিলাকে।

সাইবেরিয়ার অধিবাসী নাতালিয়া প্রায়ই তার পোষা কুকুরটিকে নিয়ে জঙ্গলের দিকে হাঁটতে বের হতেন। ২০১৫ সালের মে মাসের এক বিকেলে বার্চ গাছের রস সংগ্রহ করতে একাই বেরিয়ে পড়েন তিনি। হঠাৎ সেদিন নাতালিয়াকে আক্রমণ করে এক ভাল্লুক। থেঁতলে দেয় তার দুটি পা। এক পর্যায়ে হাতাহাতি চলে তাদের মধ্যে। কিন্তু নাতানিয়া পরাজিত হয় এই ভাল্লুকের কাছে।

অবশেষে অজ্ঞান হারিয়ে ফেলেন তিনি। কিন্তু নাতালিয়া এখনো বেঁচে আছে এটুকু হয়তো বুঝতে পেরেছিল ভাল্লুকটি। পরে খাওয়া যাবে মনে করে মাটিতে গর্ত খুঁড়ে নাতালিয়াকে দাফন করে দেয় সে। মারাত্মক আহত নাতালিয়ার জ্ঞান ফিরে আসলেও তিনি বুঝতে পারছিলেন না কী করা উচিত তখন।

জঙ্গলের মধ্যে চিৎকার করে কাউকে ডেকে লাভ হবে না, এটুকু তিনি জানতেন। তাছাড়া চিৎকার-চেঁচামেচিতে যদি ভাল্লুকটিই ফিরে আসে, সেই ভয়েও চুপ করে পড়ে থাকেন তিনি। কবরের মাটি কিছুটা সরিয়ে বাতাস ঢোকার রাস্তা বের করে নেন শুধু। এভাবে কেটে যায় এক রাত।

পরদিন সেই জঙ্গলে শিকার করতে আসে একদল শিকারি। তারাই তাকে উদ্ধার করে। আর অন্যদিকে ভাল্লুকটি শিকারিদের হাতে বন্দি হয়। আর সেদিন শিকারীদের জন্য এভাবে নাতানিয়া ফিরে পেল নতুন জীবন।
সর্বশেষ সংবাদ
  • ২১ আগষ্টসহ বার বার এই দেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে চেয়েছিল ওরা...!২১ আগষ্টের জড়িতরা এখন কোথায়? বর্বরতম গ্রেনেড হামলার দিন পুলিশের ছত্রছায়ায় প্রাসাদে ঘুমাচ্ছেন নাফ সিমান্তের অধরা ইয়াবা গডফাদাররা !রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত টিম এখন ঢাকায়বিএনপি-জামায়তের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধুর জন্য জাতিসংঘে সদরদপ্তরে প্রথমবারের মতো জাতীয় শোক দিবসক্রস ফায়ারের মাঝেও মানব পাচার! থেমে নেই অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসারোববার কবি শামসুর রাহমানের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকীঢাকা-দিল্লীর সম্পর্ক এখন নতুন উচ্চতায় : বাংলাদেশ হাইকমিশনারছয় বছর বয়সেই ইসি'র স্মার্টকার্ডবঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাস : স্বাধীনতা বাঙ্গালীর সোনালী অর্জন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়ার যোগাযোগ ছিল : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে : আইনমন্ত্রী২২ আগস্ট শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বাঙালীর বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন জাতির জনক মাশরাফির অবসর নিয়ে দু'দিনের মধ্যেই আলোচনায় বসবে বিসিবিটুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদনবঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক চেষ্টা চলছে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে ‘কমিশন’ গঠনের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ও সর্বস্তরের জনতার বিনম্র শ্রদ্ধা
  • ২১ আগষ্টসহ বার বার এই দেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে চেয়েছিল ওরা...!২১ আগষ্টের জড়িতরা এখন কোথায়? বর্বরতম গ্রেনেড হামলার দিন পুলিশের ছত্রছায়ায় প্রাসাদে ঘুমাচ্ছেন নাফ সিমান্তের অধরা ইয়াবা গডফাদাররা !রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত টিম এখন ঢাকায়বিএনপি-জামায়তের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধুর জন্য জাতিসংঘে সদরদপ্তরে প্রথমবারের মতো জাতীয় শোক দিবসক্রস ফায়ারের মাঝেও মানব পাচার! থেমে নেই অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসারোববার কবি শামসুর রাহমানের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকীঢাকা-দিল্লীর সম্পর্ক এখন নতুন উচ্চতায় : বাংলাদেশ হাইকমিশনারছয় বছর বয়সেই ইসি'র স্মার্টকার্ডবঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাস : স্বাধীনতা বাঙ্গালীর সোনালী অর্জন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়ার যোগাযোগ ছিল : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে : আইনমন্ত্রী২২ আগস্ট শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বাঙালীর বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন জাতির জনক মাশরাফির অবসর নিয়ে দু'দিনের মধ্যেই আলোচনায় বসবে বিসিবিটুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদনবঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক চেষ্টা চলছে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে ‘কমিশন’ গঠনের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ও সর্বস্তরের জনতার বিনম্র শ্রদ্ধা
উপরে