প্রকাশ : ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৬ ০১:০৯:২০
ঝিকরগাছায় পৌষকালী মেলার আজ শেষ দিন-
প্রায় সাড়ে ৭’শ বছরের ঐতিহ্য নিয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে গদখালী কালিমন্দির
বাংলাদেশ বাণী, আবুল কালাম আজাদ, ঝিকরগাছা (যশোর) অফিস : যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার ৪নং গদখালী ইউনিয়নের অবস্থিত যশোর-কোলকাতা মহাসড়কের পার্শ্বে অবাক দৃষ্টিতে দাঁড়িয়ে রয়েছে প্রায় ৭’শ বছরের ঐতিহ্য বহন করে আজও কালের সাক্ষী হয়ে গদখালী কালিমন্দিরটি। গত বুধবার থেকে সেখানে শুরু হয়েছে আজ শুক্রবার পর্যন্ত তিন দিন ব্যাপি দেশের একমাত্র পৌষকালি মেলার পরিসমাপ্তি ঘটবে। প্রতি বছর পৌষ মাসের শেষ সপ্তাহে এই ঐতিহ্যবাহী পৌষকালি মেলা শুরু হয়।
বিশেষ সূত্রে জানা গেছে, প্রচীনকাল থেকে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী বাজারের পাশে স্থাপিত এই মন্দিরকে ঘিরে রয়েছে নানা রকম জল্পনা কল্পনা। যা ইতিহাস ও ঐতিহ্যের প্রবীন ব্যক্তিরা এই মন্দিরের স্থাপতিকাল খ্রি: শতাব্দির ১৬৬২ সালে বলে দাবী করেন। বিগত ২০/২৫ বছর ধরে এই মন্দিরটিকে ঘিরে পালিত হয়ে আসছে পৌষকালি মেলাটি। মেলাটিতে দেশের এবং পাশ্ববর্তী দেশ ভারত, নেপালসহ বিভিন্ন দেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের ভক্তদের মিলন মেলায় পরিনত হয় এবং মেলার মাঠে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে বিক্রির জন্য নামি-দামি সামগ্রী নিয়ে আসে। পৌষকালী মেলা শুরু হওয়ার পূর্বে কয়েক’শ বছর ধরে এখানে ঘট পূজা পালিত হতো বলে প্রবীন হিন্দু ব্যক্তিরা জানিয়েছে। প্রবীন ব্যক্তিরা এর ইতিহাস সম্পর্কে জানান ইংরেজ শাসনামলে পূর্তগীজ দস্যূরা ওই গ্রামে আশ্রয় নেয়। অত:পর দস্যূদের সর্দার রডারিক রডা জোর করে বৃদ্ধ কমলেস এর ষোড়শী কন্যা মাদলসাকে বিয়ে করে। রডারিক রডা অন্য ধর্মের মেয়েকে জোর পূর্বক বিয়ে করে তাকে না পেয়ে সন্যাসী জীবন বেছে নেয়, এবং ওই গ্রামে থেকে যায়। দুই ধর্মের দুই জনের প্রেম প্রণয়ের জন্য রডারিক উপসনার জন্য গদখালী (তৎকালিন গড়খালী) গ্রামের হরহরী নদের পাশে গড়ে তোলে গড বা কালী মন্দিরটি। যুদ্ধে রডারিক রডার মৃতের পর মাদলসা তার বাকি জীবন ওই মন্দিরে কাটিয়ে দেয়।
পরবর্তীতে সেটা গদখালী কালীমন্দির নামে পরিচিতি পায়। দীর্ঘদিন মন্দিরটি জরাজির্ন অবস্থায় থাকলেও ২০০১ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় আসলে কালীমন্দিরটি পাকাকরণসহ উন্নয়নমুলক কাজ হয় বলে জানাগেছে। মন্দিরটি ঝিকরগাছা উপজেলার হিন্দু সম্প্রদায়ের ঐতিহ্য বলে এলাকাবাসীর অভিমত। এছাড়াও ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালীকে বাংলাদেশের ফুলের রাজধানী বলা হয়ে থাকে। বিশ্বের মধ্যে এই দু’টা বিষয়ের জন্য যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলা ব্যাপক হারে মানুষের হৃদয় কাড়তে সক্ষম হয়ে থাকে।
সর্বশেষ সংবাদ
  • ২১ আগষ্টসহ বার বার এই দেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে চেয়েছিল ওরা...!২১ আগষ্টের জড়িতরা এখন কোথায়? বর্বরতম গ্রেনেড হামলার দিন পুলিশের ছত্রছায়ায় প্রাসাদে ঘুমাচ্ছেন নাফ সিমান্তের অধরা ইয়াবা গডফাদাররা !রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত টিম এখন ঢাকায়বিএনপি-জামায়তের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধুর জন্য জাতিসংঘে সদরদপ্তরে প্রথমবারের মতো জাতীয় শোক দিবসক্রস ফায়ারের মাঝেও মানব পাচার! থেমে নেই অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসারোববার কবি শামসুর রাহমানের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকীঢাকা-দিল্লীর সম্পর্ক এখন নতুন উচ্চতায় : বাংলাদেশ হাইকমিশনারছয় বছর বয়সেই ইসি'র স্মার্টকার্ডবঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাস : স্বাধীনতা বাঙ্গালীর সোনালী অর্জন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়ার যোগাযোগ ছিল : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে : আইনমন্ত্রী২২ আগস্ট শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বাঙালীর বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন জাতির জনক মাশরাফির অবসর নিয়ে দু'দিনের মধ্যেই আলোচনায় বসবে বিসিবিটুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদনবঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক চেষ্টা চলছে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে ‘কমিশন’ গঠনের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ও সর্বস্তরের জনতার বিনম্র শ্রদ্ধা
  • ২১ আগষ্টসহ বার বার এই দেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে চেয়েছিল ওরা...!২১ আগষ্টের জড়িতরা এখন কোথায়? বর্বরতম গ্রেনেড হামলার দিন পুলিশের ছত্রছায়ায় প্রাসাদে ঘুমাচ্ছেন নাফ সিমান্তের অধরা ইয়াবা গডফাদাররা !রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত টিম এখন ঢাকায়বিএনপি-জামায়তের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধুর জন্য জাতিসংঘে সদরদপ্তরে প্রথমবারের মতো জাতীয় শোক দিবসক্রস ফায়ারের মাঝেও মানব পাচার! থেমে নেই অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসারোববার কবি শামসুর রাহমানের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকীঢাকা-দিল্লীর সম্পর্ক এখন নতুন উচ্চতায় : বাংলাদেশ হাইকমিশনারছয় বছর বয়সেই ইসি'র স্মার্টকার্ডবঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাস : স্বাধীনতা বাঙ্গালীর সোনালী অর্জন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়ার যোগাযোগ ছিল : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে : আইনমন্ত্রী২২ আগস্ট শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বাঙালীর বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন জাতির জনক মাশরাফির অবসর নিয়ে দু'দিনের মধ্যেই আলোচনায় বসবে বিসিবিটুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদনবঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক চেষ্টা চলছে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে ‘কমিশন’ গঠনের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ও সর্বস্তরের জনতার বিনম্র শ্রদ্ধা
উপরে