প্রকাশ : ২৭ অক্টোবর, ২০১৮ ০৩:০১:১৯
ইমরুল কায়েস ও সৌম্য সরকারের জোড়া সেঞ্চুরিতে জিম্বাবুয়েকে ‘বাংলাওয়াশ’
বাংলাদেশ বাণী, ক্রীড়া ডেস্ক : ইমরুল কায়েস ও সৌম্য সরকারের জোড়া সেঞ্চুরিতে ওয়ানডে সিরিজে জিম্বাবুয়েকে ফের ‘বাংলাওয়াশ’ করলো বাংলাদেশ। আজ সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে জিম্বাবুয়েকে ৭ উইকেটে হারায় টাইগাররা। ফলে তিন ম্যাচের সিরিজ ৩-০ ব্যবধানে জিতে নিলো মাশরাফির দল। এর আগে ২০০৬, ২০১৪ ও ২০১৫ সালে দেশের মাটিতে জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করেছিলো বাংলাদেশ। ২০১৪ ও ২০১৫ সালে মাশরাফির নেতৃত্বেই জিম্বাবুয়ে হোয়াইটওয়াশ করেছিলো বাংলাদেশ।

প্রথম দুই ম্যাচের পর তৃতীয় ওয়ানডেতেও টস ভাগ্যে জয় পান বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। তিনটি পরিবর্তন এনে শেষ ওয়ানডের জন্য একাদশ সাজানো হয়। প্রথম দু’ম্যাচে শুন্য রানে ফেরা ফজলে মাহমুদ, মেহেদি হাসান মিরাজ ও মুস্তাফিজুর রহমানকে রাখা হয়নি দলে। তাদের জায়গায় একাদশে ঢুকেছেন আরিফুল হক, আবু হায়দার ও সৌম্য সরকার। আর এ ম্যাচ দিয়ে ওয়ানডে অভিষেক হলো আরিফুলের।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে দিবা-রাত্রির ম্যাচে বাংলাদেশ তিনটি পরিবর্তন করলেও, দু’টি পরিবর্তন নিয়ে টস হেরে প্রথমে ব্যাট হাতে নেমেই বিপাকে পড়ে যায় জিম্বাবুয়ে। ৬ রানের ব্যবধানে প্যাভিলিয়নে ফিরেন সফরকারী দুই ওপেনার অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ও চেপাস ঝুয়াও। দ্বিতীয় ওভারের তৃতীয় বলে ঝুয়াওকে বোল্ড করেন মিডিয়াম পেসার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। শুন্য হাতে ফিরেন ঝুয়াও। পরের ওভারে জিম্বাবুয়ে শিবিরে আঘাত হানেন বাংলাদেশের বাঁ-হাতি পেসার আবু হায়দার। ২ রান করা মাসাকাদজাকে শিকার করেন আবু হায়দার।

শুরুতে জোড়া ধাক্কায় ভড়কে যাননি দুই মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান সাবেক অধিনায়ক ব্রেন্ডন টেইলর ও সিন উইলিয়ামস। শুরুতে উইকেটে সেট হয়ে স্কোর বোর্ডকে শক্ত করতে থাকেন টেইলর ও উইলিয়ামস। ফলে ২১তম ওভারেই ১শ রান পূর্ণ করে জিম্বাবুয়ে।

এই জুটি ভাঙ্গতে সাতজন বোলার ব্যবহার করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি। অবশেষে দলীয় ১৩৮ রানে বিচ্ছিন্ন হন টেইলর ও উইলিয়ামস। ৭৫ রান করা টেইলরকে থামান বাংলাদেশের বাঁ-হাতি স্পিনার নামজুল ইসলাম। ৮টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৭২ বলে নিজের ইনিংসটি সাজান টেইলর। আগের ম্যাচেও ৭৫ রানে আউট হয়েছিলেন টেইলর। তৃতীয় উইকেটে ১৪৫ বলে ১৩২ রান যোগ করেন টেইলর ও উইলিয়ামস।

ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ৩৬তম হাফ-সেঞ্চুরি তুলে টেইলর ফিরলেও দলের রান বড় করার দায়িত্ব পালন করছিলেন উইলিয়ামস। সাথে সঙ্গী হিসেবে পান সিকান্দার রাজা। দলের স্কোর বড় করার কাজটা দায়িত্ব সহকারেই করছিলেন এ জুটি। এর মাঝে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১২২তম ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় সেঞ্চুরির স্বাদ নেন উইলিয়ামস। ২০১৫ সালের অক্টোবরের পর তিন অংকে পা দিলেন তিনি।

রাজার সাথে চতুর্থ উইকেটে ৯৩ বলে ৮৪ ও পিটার মুরের সাথে ৪৩ বলে ৬২ রান যোগ করেন উইলিয়ামস। ফলে ৫০ ওভারে ৫ উইকেটে ২৮৬ রানের বড় সংগ্রহ পায় জিম্বাবুয়ে। রাজা ৫১ বলে ৪০ ও মুর ২১ বলে ২৮ রান করেন।
ইনিংসের শেষ অবধি অপরাজিত ছিলেন উইলিয়ামস। ১০টি চার ও ১টি ছক্কায় ১৪৩ বলে ১২৯ রান করেন উইলিয়ামস। এটিই তার ক্যারিয়ারের সেরা ইনিংস। বাংলাদেশের পক্ষে নাজমুল ৫৮ রানে ২ উইকেট নেন।

জয়ের জন্য বাংলাদেশের সামনে ২৮৭ রানের টার্গেট দেয় জিম্বাবুয়ে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২৮৭ রানের বেশি টার্গেট স্পর্শ একবারই করেছে বাংলাদেশ। ২০০৯ সালে বুলাওয়েতে ৩১২ রানের টার্গেটে ৪ উইকেটে ম্যাচ জিতেছিলো বাংলাদেশ।
তবে ২৮৭ রানের টার্গেটের শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। নিজেদের ইনিংসের প্রথম বলেই ফিরে যান ওপেনার লিটন দাস। লিটনকে শুন্য হাতে ফেরান জিম্বাবুয়ের পেসার কাইল জার্ভিস। শুরুতে উইকেট হারানোকে আমলে নেননি আরেক ওপেনার ইমরুল কায়েস ও প্রথমববারের মত সিরিজে সুযোগ পাওয়া সৌম্য সরকার। ৬ দশমিক ৫ ওভারে দলের স্কোর ৫০ রান স্পর্শ করেন ইমরুল ও সৌম্য।

এরপর শতরানে দলকে পৌছে দিতে খুব বেশি সময় নেননি ইমরুল ও সৌম্য। ১৬ দশমিক ২ ওভারে বাংলাদেশের স্কোর শতরানে পৌছে যায়। এরমধ্যে হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন ইমরুল। হাফ-সেঞ্চুরির অপেক্ষায় ছিলেন সৌম্যও। অবশেষে আট ইনিংস ও প্রায় দেড় বছর পর হাফ-সেঞ্চুরির দেখা পান সৌম্য।
৫৪ বলে হাফ-সেঞ্চুরি পরও দাপটের সাথে রান তুলেছেন সৌম্য। ফলে ৮১তম বলেই ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে ফেলেন সৌম্য। ২০১৫ সালের এপ্রিল পাকিস্তানের বিপক্ষে সর্বশেষ সেঞ্চুরির স্বাদ নিয়েছিলেন তিনি। ক্যারিয়ারে তার প্রথম সেঞ্চুরির ইনিংস ছিলো ১২৭ রানের।

শেষ পর্যন্ত ১১৭ রানে থেমে যান সৌম্য। তার ৯২ বলের ইনিংসে ৯টি চার ও ৬টি ছক্কার মার ছিলো। দ্বিতীয় উইকেটে ১৭৯ বলে ২২০ রানের জুটি গড়েন ইমরুল ও সৌম্য।
সৌম্যর বিদায়ের পর ৯৯তম বলে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের চতুর্থ সেঞ্চুরির তুলে নেন ইমরুল। শেষ পর্যন্ত ১১৫ রানে থামেন তিনি। ১১২ বল মোকাবেলা করে ১০টি চার ও ২টি ছক্কায় নিজের ইনিংসটি সাজান ইমরুল।
দলীয় ২৭৪ রানে ইমরুল ফিরে যাবার পর ৪৭ বল হাতে রেখেই বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত করেন মুশফিকুর রহিম ও মোহাম্মদ মিথুন। মুশি ২৮ ও মিথুন ৭ রানে অপরাজিত থাকেন। ওয়ানডে সিরিজ শেষে আগামী ৩ নভেম্বর থেকে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শুরু করবে বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ে।

স্কোর কার্ড :

জিম্বাবুয়ে ইনিংস :

মাসাকাদজা বোল্ড ব আবু হায়দার ২
ঝুয়াও বোল্ডর আবু হায়দার ০
টেইলর ক মুশফিকুর ব নাজমুল ৭৫
উইলিয়ামস অপরাজিত ১২৯
রাজা ক সৌম্য ব নাজমুল ৪০
মুর ক মিরাজ ব মুস্তাফিজ ২৮
চিগুম্বুরা অপরাজিত ১
অতিরিক্ত (বা-৪, লে বা-৫, নো-১, ও-১) ১১
মোট : (৫ উইকেট, ৫০ ওভার) ২৮৬
উইকেট পতন : ১/৬ (ঝুয়াও), ২/৬ (মাসাকাদজা), ৩/১৩৮ (টেইলর), ৪/২২২ (রাজা), ৫/২৮৪ (মুর)।

বাংলাদেশ বোলিং : আবু হায়দার : ৯-১-৩৯-১,
সাইফউদ্দিন : ১০-২-৫১-১,
আরিফুল হক : ৩-০-১৭-০,
মাশরাফি : ৮-০-৫৬-০ (নো-১),
সৌম্য : ২-০-১৬-০,
নাজমুল : ৮-০-৫৮-২ (ও-১),
মাহমুুদুল্লাহ : ১০-০-৪০-০।
বাংলাদেশ ইনিংস :
লিটন এলবিডব্লু ব জার্ভিস ০
ইমরুল ক চিগুম্বুরা ব ওয়েলিংটন মাসাকাদজা ১১৫
সৌম্য ক তিরিপানো ব হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ১১৭
মুশফিক অপরাজিত ২৮
মোহাম্মদ মিথুন অপরাজিত ৭
অতিরিক্ত (নো-২, ও-১৯) ২১
মোট : (৩ উইকেট, ৪২.১ ওভার) ২৮৮
উইকেট পতন : ১/০ (লিটন), ২/২২০ (সৌম্য), ৩/২৭৪ (ইমরুল)।

জিম্বাবুয়ে বোলিং :

জার্ভিস : ৬-০-৪৭-১,
এনগারাভা : ৫-০-৪৪-০ (ও-২, নো-১),
তিরিপানো : ৪-০-৩৩-০ (ও-২),
রাজা : ১০-০-৪৭-০ (ও-৪),
ওয়েলিংটন মাসাকাদজা : ১০-০-৭১-১ (ও-১),
সিন উইলিয়ামস : ৬.১-০-৪৩-০ (ও-৪, নো-১),
হ্যামিল্টন মাসাকাদজা : ১-০-৩-১।

ফল : বাংলাদেশ ৭ উইকেটে জয়ী।

সিরিজ : তিন ম্যাচের সিরিজ ৩-০ ব্যবধানে জিতলো বাংলাদেশ।

ম্যাচ সেরা : সৌম্য সরকার (বাংলাদেশ)

সিরিজ সেরা : ইমরুল কায়েস (বাংলাদেশ)





 
সর্বশেষ সংবাদ
  • রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত টিম এখন ঢাকায়বিএনপি-জামায়তের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধুর জন্য জাতিসংঘে সদরদপ্তরে প্রথমবারের মতো জাতীয় শোক দিবসক্রস ফায়ারের মাঝেও মানব পাচার! থেমে নেই অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসারোববার কবি শামসুর রাহমানের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকীঢাকা-দিল্লীর সম্পর্ক এখন নতুন উচ্চতায় : বাংলাদেশ হাইকমিশনারছয় বছর বয়সেই ইসি'র স্মার্টকার্ডবঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাস : স্বাধীনতা বাঙ্গালীর সোনালী অর্জন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়ার যোগাযোগ ছিল : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে : আইনমন্ত্রী২২ আগস্ট শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বাঙালীর বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন জাতির জনক মাশরাফির অবসর নিয়ে দু'দিনের মধ্যেই আলোচনায় বসবে বিসিবিটুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদনবঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক চেষ্টা চলছে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে ‘কমিশন’ গঠনের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ও সর্বস্তরের জনতার বিনম্র শ্রদ্ধাজাতীয় শোক দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী'র বাণীআজ জাতীয় শোক দিবস : টুঙ্গিপাড়ায় যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের অপরাধটা কি? সব খুনিদের বিচার হোক
  • রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত টিম এখন ঢাকায়বিএনপি-জামায়তের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধুর জন্য জাতিসংঘে সদরদপ্তরে প্রথমবারের মতো জাতীয় শোক দিবসক্রস ফায়ারের মাঝেও মানব পাচার! থেমে নেই অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসারোববার কবি শামসুর রাহমানের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকীঢাকা-দিল্লীর সম্পর্ক এখন নতুন উচ্চতায় : বাংলাদেশ হাইকমিশনারছয় বছর বয়সেই ইসি'র স্মার্টকার্ডবঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাস : স্বাধীনতা বাঙ্গালীর সোনালী অর্জন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়ার যোগাযোগ ছিল : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে : আইনমন্ত্রী২২ আগস্ট শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বাঙালীর বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন জাতির জনক মাশরাফির অবসর নিয়ে দু'দিনের মধ্যেই আলোচনায় বসবে বিসিবিটুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদনবঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক চেষ্টা চলছে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে ‘কমিশন’ গঠনের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ও সর্বস্তরের জনতার বিনম্র শ্রদ্ধাজাতীয় শোক দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী'র বাণীআজ জাতীয় শোক দিবস : টুঙ্গিপাড়ায় যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের অপরাধটা কি? সব খুনিদের বিচার হোক
উপরে