প্রকাশ : ৩১ মে, ২০১৬ ২২:০৪:০৮
রংপুর বিভাগের জন্য কেমন বাজেট চাই?
বৈষম্য দূরীকরণ ও কৃষিভিত্তিক শিল্পে জোর দিতে হবে : কাশেম
বাংলাদেশ বাণী টোয়েন্টিফোর ডটকম, ডেস্ক রিপোর্ট : বিরামহীন বঞ্চনা ও বৈষম্যের কারণে রংপুর বিভাগ উন্নয়নের দিক থেকে অনেক পিছিয়ে আছে। রংপুর অঞ্চলে রয়েছে কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প প্রতিষ্ঠার অপার সম্ভাবনা। সুষ্ঠু পরিকল্পনার অভাবে জাতীয় উন্নয়নের মূলধারা থেকে ছিটকে পড়ার উপক্রম হয়েছে রংপুর বিভাগ। রংপুর বিভাগ হলো কৃষিনির্ভর অঞ্চল। খাদ্যভিত্তিক অঞ্চল। শ্রমিক সহজলভ্যতা থাকা সত্ত্বেও শিল্পায়নের মূল চালিকাশক্তি গ্যাসের দুস্প্রাপ্যতা ও নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকা এবং অবকাঠামোগত সমস্যার কারণে এ অঞ্চলে কৃষিভিত্তিক প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প কল কারখানা স্থাপিত হচ্ছে না। কর্মসংস্থানের অভাবে সারাদেশের মধ্যে রংপুর বিভাগে দারিদ্রের হার বেশি এবং অপুষ্টিজনিত ঘাটতিও বেশি। তাই রংপুর অঞ্চলের দারিদ্রের হার দ্রুত কমিয়ে আনতে হলে কর্মসংস্থান সৃষ্টিসহ আঞ্চলিক উন্নয়ন বৈষম্য দূর  করে আসন্ন বাজেটে পিছিয়ে পড়া রংপুর বিভাগের জন্য আলাদা বাজেট বরাদ্দ রাখা হলে রংপুর বিভাগের অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের গতি বহুগুণ বৃদ্ধি পাবে বলে রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সভাপতি মোঃ আবুল কাশেম মনে করেন। তাই তিনি রংপুর বিভাগের উন্নয়নের স্বার্থে নিম্নরূপ মতামত প্রকাশ করেন।

প্রশ্ন : আসন্ন বাজেট প্রস্তাবে রংপুর চেম্বারের মূল প্রস্তাবনা কি কি?

উত্তর : রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র মূল প্রস্তাবনাসমুহ নিম্নরুপ-

উন্নয়ন বঞ্চিত রংপুর বিভাগের মানুষ চরম আয় বৈষম্যের শিকার, আঞ্চলিক উন্নয়নেও নেই বিশেষ কোনো সুবিধা ও উদ্যোগ। ফলে আর্থসামাজিক বিবেচনায় রংপুর বিভাগের ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিল্পায়নে কোনোই অগ্রগতি হচ্ছে না। এ কারণে এ অঞ্চলের মানুষের কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রগুলো দিন দিন সীমিত হওয়ায় বাড়ছে বেকারত্বের সংখ্যা। তাই দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন কর্মকান্ডের  মূল স্রোতধারা থেকে বিচ্ছিন্ন রংপুর বিভাগের ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিল্পায়নের জন্য আলাদা শিল্পনীতি, করনীতি, ভ্যাট নীতি, শুল্কনীতি ও ঋণনীতি প্রণয়ন, আঞ্চলিক বৈষম্য হ্রাস, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, কৃষি ও গ্রামীণ অর্থনীতির উন্নয়ন, বিকল্প জ্বালানি শক্তির সরবরাহ, আইসিটি ভিত্তিক মানব সম্পদ উন্নয়নে ব্যাপক পরিকল্পনা ও কর্মসুচী গ্রহন, শিল্পে ব্যবহৃত ফার্নেস অয়েল ও বিদ্যুতে ভর্তুকি, কয়লা ভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন, পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশীপ এবং দেশি বিদেশী যৌথ উদ্যোগে অধিক হারে কৃষিভিত্তিক শিল্প স্থাপনের লক্ষ্যে আসন্ন বাজেটে প্রয়োজনীয় কর্মপরিকল্পনা গ্রহণসহ অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।

* রংপুর অঞ্চলের বিনিয়োগ বাড়াতে হলে দরকার অবকাঠামোগত উন্নয়ন। তাই প্রস্তাবিত এলেঙ্গা-হাটিকমরুল-রংপুর মহাসড়ক চারলেনে উন্নীতকরণ প্রকল্পের কাজ দ্রুত বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আসন্ন বাজেটে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি। এর ফলে শিল্পায়ন, নগরায়ন ও মানবসম্পদ উন্নয়নে প্রকল্পটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।
* দেশের সামাজিক ও ভৌগলিক বৈষম্য নিরসনসহ অধিক হারে কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে রংপুর বিভাগের জন্য প্রস্তাবিত বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলটি দ্রুত স্থাপনের লক্ষ্যে আসন্ন বাজেটে প্রয়োজণীয় অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।
* রংপুর বিভাগের আমদানি ও রপ্তানি বাণিজ্য সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ইমিগ্রেশন সুবিধাসহ সকল স্থলবন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধি ও অবকাঠামোগত উন্নয়নের লক্ষ্যে আসন্ন বাজেটে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।
* ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্প্রসারণের লক্ষ্যে রংপুর অঞ্চলে আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন বিমান বন্দর নির্মাণ করা একান্ত জরুরি। এছাড়া বিদ্যমান সৈয়দপুর বিমান বন্দরকে আরো আধুনিক ও উন্নত মান সম্পন্ন করতে আসন্ন বাজেটে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।
* রংপুর বিভাগে শিল্প কারখানা স্থাপনে উদ্যোক্তাদের আগ্রহ সৃষ্টির লক্ষ্যে ট্যাক্স হলি ডের মেয়াদ ১০ বৎসর বৃদ্ধি করার প্রস্তাব করছি।
* সকল শ্রেণীর নারী উদ্যোক্তাদের অধিক হারে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে আসন্ন বাজেটে বিদ্যমান ঋণনীতি পরিবর্তনের প্রস্তাব করছি।
* কৃষি নির্ভর রংপুর বিভাগের জন্য আসন্ন বাজেটে কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প পার্ক স্থাপন সংক্রান্ত ব্যাপারে অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।
* রংপুর হলো কৃষিনির্ভর অঞ্চল। তাই এ অঞ্চলের কৃষকদের বাঁচাতে কৃষি খাতে অধিক হারে ভর্তুকি প্রদানের লক্ষ্যে আসন্ন বাজেটে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।
* প্রযুক্তিগত শিক্ষার অভাবে এ অঞ্চলের প্রায় উল্লে¬খযোগ্য জনশক্তি আজ বেকার কর্মহীন। এ দুরাবস্থা দুর করার জন্য বৃত্তিমূলক বা কারিগরি শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। উচ্চ শিক্ষার সুষম বিকাশে পিছিয়ে পড়া এ অঞ্চলে গড়ে ওঠেনি কোন প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। তাই এ অঞ্চলে একটি  প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের জন্য শিক্ষাখাতের বাজেটে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।
* রংপুর বিভাগের জনগন অন্যান্য অঞ্চলের ন্যায় কর্মসংস্থানের বিদেশ গমনের অধিক সুযোগ পায় সেজন্য অবকাঠামোগত সুবিধা, দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টির জন্য কারিগরি প্রতিষ্ঠান, ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্পের জন্য প্রশিক্ষন ইন্সটিটিউট স্থাপনের লক্ষ্যে আসন্ন বাজেটে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।
* পিছিয়ে পড়া রংপুর বিভাগে আইসিটি ভিত্তিক দক্ষ মানব সম্পদ উন্নয়নে ও বর্তমান গনতান্ত্রিক সরকারের ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশ এবং ভিষন ২০২১ যথাযথ ভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আইসিটি শিক্ষার সম্প্রসারণসহ রংপুর অঞ্চলে আইটি পার্ক স্থাপনে আসন্ন বাজেটে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।
* রংপুর বিভাগের যাত্রী সাধারণের ভ্রমণ সুবিধা ছাড়াও মালামাল পরিবহণে সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে এ অঞ্চলে রেল যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে রংপুর থেকে পার্বতীপুর পর্যন্ত  রেল লাইনকের্ রডগেজ-এ রূপান্তরিত করার প্রস্তাব করছি। এছাড়া আসন্ন বাজেটে রংপুর বিভাগের সকল জেলার সাথে আন্তঃ নগর ট্রেন সংযোগসহ রংপুর বিভাগীয় শহর হতে চট্রগ্রাম পর্যন্ত আন্তঃনগর ট্রেন সার্ভিস চালুকরণের ব্যাপারে কর্মপরিকল্পনা ও প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।
প্রশ্ন : বাজেট প্রস্তাবনায় নতুন মূসক আইন বাস্তবায়নের ব্যাপারে কোন পরামর্শ রাখছেন কি না?
উত্তর : নতুন মূসক আইনে বেশ কিছু মূল্যবান দিক আছে। তবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের স্বার্থে ভ্যাট বা মূল্য সংযোজন কর (মূসক) আইনকে আরও বোধগম্য ও সহজীকরণ করার পাশাপাশি স্লাবভিত্তিক ভ্যাট আদায়ের প্রক্রিয়া রহিত করে ২০২১ সাল পর্যন্ত প্যাকেজ ভ্যাট বহাল রাখার পাশাপাশি নতুন ভ্যাট আইনে সব ক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট আদায়ের পরিবর্তে ব্যবসার শ্রেণী বিন্যাস করে ভিন্ন ভিন্ন হারে ভ্যাট আরোপ করতঃ ভ্যাট ফাঁকি রোধে প্রয়োজনীয় কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের প্রস্তাব করছি। এছাড়া কর জাল বাড়াতে উপজেলা ও গ্রাম পর্যায় পর্যন্ত আয়কর অফিস স্থাপন করার জোর সুপারিশ করছি।
প্রশ্ন : বাজেট প্রস্তাবনা তেমন কার্যকর হয় না। সেক্ষেত্রে স্থানীয় ব্যবসা বানিজ্যের প্রসারে/ ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ তৈরিতে চেম্বারের উদ্যোগ কি থাকবে?
উত্তর : বাজেট প্রস্তাবনা অনুযায়ী কার্যক্রম পরিচালনা করা খুবই কঠিন এবং দুরূহ। বাজেট প্রস্তাবনা কার্যকরী না হওয়ায় সরকারি দপ্তরসমুহের সহিত সমন্বয় করে ব্যবসা-বাণিজ্যের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়াদির উন্নয়নে রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি কাজ করবে।
প্রশ্ন : কুটির শিল্প বিশেষ করে শতরঞ্জি তৈরি করে কারুপণ্য সারাবিশ্বে রংপুরের প্রতিনিধিত্ব করছে। অন্য ক্ষেত্রগুলোতে ভালো করা সম্ভব কিনা?
উত্তর : আমার জানামতে রংপুরে এখন শতরঞ্জি তৈরির পাশাপাশি অনেক নতুন নতুন উদ্যোক্তাগণ বিশেষ করে নারী উদ্যোক্তাগণ ঘরে বসেই অনেক নতুন নতুন পণ্য  যেমনঃ ভেনিটি ব্যাগ, টিস্যু বক্সের কভার, ওয়ালম্যাট, টুপি ও শিশুদের জন্য পোশাক ইত্যাদি পণ্য উৎপাদন করছেন। এসব  পণ্য উৎপাদনে ও বাজার জাতকরণে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা একান্ত দরকার। তাই আসন্ন বাজেটে রংপুর অঞ্চলের ক্ষুদ্র ও কুঠির শিল্পের উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ তহবিল গঠনের প্রস্তাব করছি।
প্রশ্ন : রংপুরের আলু দেশের বাইরে রপ্তানি হচ্ছে। এর বৃদ্ধি করা সম্ভব কিনা? যদি প্রতিবন্ধকতা থাকে সেগুলো কি কি?
উত্তর : কৃষি নির্ভর এ অঞ্চলে কৃষিই অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি। রংপুর বিভাগে ধানের পাশাপাশি আলু একটি সম্ভাবনাময় অর্থকারী কৃষিপণ্য। রংপুর বিভাগের চরাঞ্চলের হাজার হাজার একর জমিকে চাষের আওতায় আনাসহ রংপুর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম ও নীলফামারী জেলার মানুষ ব্যাপকভাবে আলু চাষ করে থাকেন। যেখানে হাজার হাজার কৃষি শ্রমিকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হওয়ার ফলে দারিদ্র বিমোচনেও আলু চাষের গুরুত্ব অপরিসীম। কিন্তু আলুর উপর কোন প্রক্রিয়াজাতকরন কারখানা না থাকাসহ উপযুক্ত পরিকল্পনার অভাবে আলু চাষী ও ব্যবসায়ীরা প্রায় প্রতি বছরই উৎপাদিত আলুর ন্যায্য মূল্য না পেয়ে আর্থিক দিকে দিয়ে ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে থাকে। কিন্তু আশার কথা এই যে, ইতিমধ্যে আমাদের দেশের আলু শ্রীলংকা, নেপাল, ইন্দোনেশিয়া, দুবাই, সিঙ্গাপুর, ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া, রাশিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি শুরু হয়েছে। আলু রপ্তানিকারকদের উৎসাহ ও আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতামূলক বাজারে টিকে থাকার লক্ষ্যে বিদ্যমান ২০% ইনসেনটিভ বৃদ্ধি করে ৪০% এ উন্নীত করা একান্ত প্রয়োজন। কেননা পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে আলু রপ্তানিতে ৪০% ইনসেনটিভ আলু রপ্তানিকারকদের প্রদান করে থাকে। তাই আসন্ন বাজেটে আলু রপ্তানিতে নগদ সহায়তা  ৪০%-এ উন্নীত করার প্রস্তাব করছি।
প্রশ্ন : রংপুরে কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প-কারখানা নির্মাণে উদ্যোক্তারা এগিয়ে আসছেন না কেন?
উত্তর : গ্যাস প্রাপ্যতার কারণে দেশের পূর্বাঞ্চলে গ্যাসভিত্তিকঅর্থনৈতিক কর্মকান্ড বিকশিত হয়েছে। যেহেতু  উৎপাদনের জন্য প্রয়োজন প্রাকৃতিক গ্যাসের। এ অঞ্চলে কৃষিভিত্তিক শিল্প স্থাপনের যথেষ্ট সুযোগ-সুবিধা থাকা সত্ত্বেও প্রাকৃতিক গ্যাসের দু®প্রাপ্যতা ও অনিয়মিত বিদ্যুৎ সরবরাহ ছাড়াও নানাবিধ প্রতিবন্ধকতার কারণে উদ্যোক্তারা শিল্প স্থাপনে এগিয়ে আসছেন না। তাই এ অঞ্চলে প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহ ছাড়া শিল্পবিকাশের সম্ভাবনা খুবই দুরূহ। গ্যাসের অভাবে এ অঞ্চলে গড়ে ওঠা শিল্প প্রতিষ্ঠান সমুহে উৎপাদিত পণ্যের উৎপাদন খরচ বেশি হওয়ায় কাঙ্খিতভাবে উদ্যোক্তাগণ মুনাফা না পাওয়ায় এ অঞ্চলে কৃষিভিত্তিক শিল্প  প্রতিষ্ঠা করতে তেমন কোন আগ্রহ প্রকাশ করছেন না। এছাড়াও  রংপুর বিভাগ থেকে মংলা ও চট্টগ্রাম বন্দরে মালামাল পৌঁছাতে ১৫/১৬ ঘন্টার বেশী সময় লাগে। ফলে বিদেশ থেকে আমদানিকৃত কাঁচামাল রংপুর বিভাগে এবং রংপুর বিভাগ হতে উৎপাদিত পণ্য বিদেশে রপ্তানি করার জন্য যে সময় ব্যয় হয় তাতে কোন বিনিয়োগকারী রংপুর বিভাগে শিল্প স্থাপনে আগ্রহী নয়। তাছাড়া উত্তরাঞ্চলে কোন আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরসহ কার্গো সার্ভিস চালু না থাকায় বিমান ব্যবহার করে বিদেশে রপ্তানি পণ্য পাঠানোর কোন সুযোগ নেই বলে এ অঞ্চলে কৃষি বান্ধব শিল্প কারখানা স্থাপনে উদ্যোক্তারা এগিয়ে আসছেন না। তাই আসন্ন বাজেটে এ বিষয়ে বিশেষ বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব করছি।
প্রশ্ন : নতুন বিসিক শিল্পনগরী নির্মাণ আজো সম্ভব হচ্ছে না কেন? বাধাসমুহ কি?
উত্তর : আমলাতান্ত্রিক  জটিলতা ও সরকারের সদিচ্ছার অভাবে বিসিক শিল্পনগরী নির্মাণ আজো সম্ভব হচ্ছে না বলে আমি মনে করি। তাই আসন্ন বাজেটে রংপুরে দ্বিতীয় বিসিক শিল্পনগরী স্থাপন সংক্রান্ত প্রকল্পে অর্থ বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব করছি।
প্রশ্ন : তামাক শিল্পকে নিরুৎসাহিত করতে কোন পদক্ষেপ নিয়েছেন কিনা? অথবা নিবেন কিনা?
উত্তর : তামাক শিল্পকে নিরুৎসাহিত করতে এখন পর্যন্ত আমরা তেমন কোন পদক্ষেপ গ্রহন করিনি। তবে যেহেতু এ শিল্প নিরুৎসাহিত করতে সরকার পদক্ষেপ নিয়েছে সেহেতু সরকারের সাথে একাত্ম হয়ে  এ শিল্পকে নিরুৎসাহিত করতে আমাদের সর্বাত্বক  সহযোগিতা থাকবে।
প্রশ্ন : শিল্পের অন্যতম জ্বালানি গ্যাস সম্পর্কে কিছু বলুন।
উত্তর : পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস সরবরাহ জোন থেকে যমুনা সেতু হয়ে সিরাজগঞ্জ, পাবনা ,বগুড়া ও রাজশাহী পর্যন্ত গ্যাস পেঁৗঁছানো হলেও রংপুর বিভাগে এখন পযর্ন্ত গ্যাস পৌঁছেনি। এ কারণে এ অঞ্চলের উদ্যোক্তাগণ নতুন নতুন শিল্প কলকারখানা স্থাপনে অনীহা প্রকাশ করে এবং চলমান শিল্প প্রতিষ্ঠানসমুহে গ্যাসের অভাবে উৎপাদন খরচ বেশি হওয়ায় প্রত্যাশিত হারে মুনাফা অর্জন করতে না পেরে শিল্প-প্রতিষ্ঠানসমুহ বন্ধের দিকে মনোনিবেশ করছেন বলে প্রতীয়মান হচ্ছে। অথচ ২০০০ সালে  পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস সঞ্চালন কেন্দ্র উদ্বোধনকালে ঘোষনা করা হয়েছিল পর্যায়ক্রমে রংপুর ও দিনাজপুর অঞ্চলে গ্যাস সরবরাহ করা হবে। এই গ্যাস প্রাপ্তির সম্ভাবনার কারণে উত্তরা ইপিজেডটি গড়ে ওঠেছিল। কিন্তু বর্তমানে গ্যাসের দু®প্রাপ্যতার কারণে কোটি কোট টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ ইপিজেডটিতে বতর্মানে ২২ টি ফাক্টরি  কোন রকমে চালু আছে। তাই আসন্ন বাজেটে শিল্পায়নের স্বার্থে অবহেলিত রংপুর বিভাগে পাইপ লাইনের মাধ্যমে দ্রুত গ্যাস সরবরাহের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করছি।
প্রশ্ন : আসন্ন বাজেটকে ঘিরে আপনার প্রত্যাশা কি?
উত্তর : আমি চাই বাজেট হবে সাধারণ মানুষের কল্যাণের বাজেট। প্রবৃদ্ধির উচ্চতর সোপানে যেতে হলে নানামুখী চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে বিনিয়োগ বাড়িয়ে কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করতে হবে। নতুন কাজের সুযোগ তৈরি করতে না পারলে প্রবৃদ্ধি বাড়বে না। এ জন্য দরকার প্রচুর বিনিয়োগ। প্রস্তাবিত বাজেটের মূল লক্ষ্য হতে হবে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানমুখী। আর গুরুত্ব দিবে হবে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও কৃষি খাতকে।

বাংলাদেশ বাণী/কাসা/ডেস্ক/৩১/০৫/২০১৬. ১০:০০ (পিএম) ঘ.





 
সর্বশেষ সংবাদ
  • রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত টিম এখন ঢাকায়বিএনপি-জামায়তের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধুর জন্য জাতিসংঘে সদরদপ্তরে প্রথমবারের মতো জাতীয় শোক দিবসক্রস ফায়ারের মাঝেও মানব পাচার! থেমে নেই অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসারোববার কবি শামসুর রাহমানের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকীঢাকা-দিল্লীর সম্পর্ক এখন নতুন উচ্চতায় : বাংলাদেশ হাইকমিশনারছয় বছর বয়সেই ইসি'র স্মার্টকার্ডবঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাস : স্বাধীনতা বাঙ্গালীর সোনালী অর্জন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়ার যোগাযোগ ছিল : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে : আইনমন্ত্রী২২ আগস্ট শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বাঙালীর বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন জাতির জনক মাশরাফির অবসর নিয়ে দু'দিনের মধ্যেই আলোচনায় বসবে বিসিবিটুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদনবঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক চেষ্টা চলছে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে ‘কমিশন’ গঠনের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ও সর্বস্তরের জনতার বিনম্র শ্রদ্ধাজাতীয় শোক দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী'র বাণীআজ জাতীয় শোক দিবস : টুঙ্গিপাড়ায় যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের অপরাধটা কি? সব খুনিদের বিচার হোক
  • রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত টিম এখন ঢাকায়বিএনপি-জামায়তের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধুর জন্য জাতিসংঘে সদরদপ্তরে প্রথমবারের মতো জাতীয় শোক দিবসক্রস ফায়ারের মাঝেও মানব পাচার! থেমে নেই অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসারোববার কবি শামসুর রাহমানের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকীঢাকা-দিল্লীর সম্পর্ক এখন নতুন উচ্চতায় : বাংলাদেশ হাইকমিশনারছয় বছর বয়সেই ইসি'র স্মার্টকার্ডবঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাস : স্বাধীনতা বাঙ্গালীর সোনালী অর্জন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়ার যোগাযোগ ছিল : প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে : আইনমন্ত্রী২২ আগস্ট শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বাঙালীর বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন জাতির জনক মাশরাফির অবসর নিয়ে দু'দিনের মধ্যেই আলোচনায় বসবে বিসিবিটুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদনবঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক চেষ্টা চলছে : ওবায়দুল কাদেরবঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে ‘কমিশন’ গঠনের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ও সর্বস্তরের জনতার বিনম্র শ্রদ্ধাজাতীয় শোক দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী'র বাণীআজ জাতীয় শোক দিবস : টুঙ্গিপাড়ায় যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীবঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের অপরাধটা কি? সব খুনিদের বিচার হোক
উপরে