প্রকাশ : ০৪ জানুয়ারি, ২০১৭ ০১:৩৩:০৫
দক্ষিণাঞ্চলের সাত জেলায় ব্লাস্ট আতঙ্ক! আবাদ হচ্ছে না গম
বাংলাদেশ বাণী, সাইয়েদ কাজল, বরিশাল প্রতিনিধি : বায়ুতারিত ছত্রাকবাহী ব্লাস্ট রোগের সংক্রমণে দেশে সম্ভবনাময় গমের আবাদ এবার যথেষ্ট ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। ভোলাসহ দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় সাতটি জেলায় এবার গম আবাদকে পরক্ষোভাবে নিরুৎসাহিত করছে কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ।
সূত্রমতে, গত এক যুগে দেশে গম আবাদ ও উৎপাদনের পরিমাণ ক্রমশ বৃদ্ধি পেলেও এবার কৃষি মন্ত্রণালয় লক্ষ্যমাত্রা হ্রাস করেছে সম্ভাবনাময় এই দানাদার খাদ্য ফসলটির। গত বছর রবি মৌসুমে দেশে সর্বকালের সর্বোচ্চ প্রায় ৪ লাখ ৮০ হাজার হেক্টরে আবাদ হলেও ১৪ হাজার হেক্টরের ফসল বিনষ্ট হওয়ায় উৎপাদন কমেছে প্রায় সাড়ে ১৩ লাখ টন। সূত্রে আরও জানা গেছে, চলতি মৌসুমে গত বছরের চেয়ে অন্তত ৩০ হাজার হেক্টর জমিতে গম আবাদের লক্ষ্যমাত্রা হ্রাস করা হয়েছে। ফলে উৎপাদনও অন্তত ৮০ হাজার টন হ্রাস পাবার আশঙ্কা রয়েছে। এরসাথে চলতি মৌসুমে এখনও শীতে তাপামাত্রা স্বাভাবিকের ওপরে থাকায় গমের উৎপাদনে বাড়তি বিরূপ প্রভাব পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। চলতি মৌসুমে দেশে সাড়ে ৪ লাখ হেক্টর জমিতে গম আবাদের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে লক্ষ্যমাত্রার দুই-তৃতীয়াংশ জমিতে আবাদ সম্পন্নও হয়েছে।
তবে কৃষি মন্ত্রণালয় ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের দায়িত্বশীল মহলের মতে, গত বছর দেশের সাতটি জেলায় ছত্রাকবাহী 'ব্লাস্ট' রোগের সংক্রমণ দেখা দেয়ায় সেখানে এবার রবি মৌসুমে গম আবাদকে কিছুটা নিরুৎসাহিত করা হলেও তা নিষিদ্ধ করা হয়নি। গত বছর ভোলা, মেহেরপুর, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, পাবনা, ঝিনাইদহ জেলাগুলোতে ব্লাষ্ট নামক এক ধরনের ছত্রাকরোগে গমের উৎপাদনে বিপর্যয় ঘটে। এমনকি ওইসব জেলার প্রায় ১৫ হাজার হেক্টর জমির গমের আবাদ নষ্ট হয়ে যায়।
রোগের সংক্রমণ প্রতিরোধে কয়েক হাজার একর জমির ফসল আগুনেও পুড়িয়ে ফেলতে হয়েছে। আর এরই ধারাবাহিকতায় কৃষি বিজ্ঞানীদের সুপারিশের আলোকে আক্রান্ত জেলাগুলোতে এবছর গম আবাদকে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। এমনকি এসব অঞ্চলের সরকারি খামারগুলোতে গম বীজ উৎপাদনও বন্ধ রাখা হয়েছে। কৃষি বিজ্ঞানীদের মতে বিকল্প পোষক গাছের মাধ্যমে এ রোগ ছড়াবার আশংকা থাকে। কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের তরফ থেকে আক্রান্ত জেলাগুলোতে গমের পরিবর্তে ডাল ও ভুট্টা জাতীয় দানাদার ফসল উৎপাদনে কৃষকদের উৎসাহিত করা হয়েছে। ফলে গত বছর দেশের সর্বকালের সর্বোচ্চ পরিমাণ গম আবাদ হলেও এবছর তা অনেকটাই হোচট খেয়েছে। কৃষি বিশেষজ্ঞগণের মতে, হুইট ব্লাস্টের মাধ্যমে সংক্রমণের কারণে গমের গাছ মারা গেলেও এর জীবাণু বিভিন্ন পোষক গাছে থেকে যায়। ফলে তা পুনরায় সংক্রমিত হবার আশঙ্কা থাকে। তাই পরবর্তী বছর হিসেবে চলতি মৌসুমে গমের আবাদকে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। এটি সারা বিশ্বের কৃষি বিজ্ঞানীদের একটি প্রতিষেধক পদ্ধতি। কৃষি বিজ্ঞানীদের মতে, ব্লাস্ট বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ধানের জন্য ক্ষতিকর ছত্রাকবাহী রোগ হলেও ১৯৮৫ সালে তা গমের ওপরও সংক্রমিত হতে থাকে। তবে দক্ষিণ এশিয়াতে বাংলাদেশেই প্রথম গত বছর এ রোগের সংক্রমণ ধরা পরে। এমনকি গতবছর দেশে গমে ব্লাস্ট রোগের ছত্রাকের জিনগত চরিত্রের সাথে ব্রাজিলের জীবাণুর অনেকটাই মিল পাওয়া গেছে।
সূত্রে আরও জানা গেছে, এ ধরনের ছত্রাকবাহী রোগের একমাত্র প্রতিষেধক হচ্ছে যত দ্রুত সম্ভব গমের ক্ষেত আগুনে পুড়িয়ে ফেলা। তা করতে গিয়ে গতবছর আক্রান্ত জেলাগুলোর কয়েক হাজার কৃষক পথে বসেছে। ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত এলাকার কৃষকদের মতে, গমের শীষ আসার পর প্রথমে এর পাতা হলুদ রঙ ধারন করে তার ওপর কালো ছোপ ছোপ দাগ পরে। দিন কয়েকের ব্যবধানে ওইসব দাগ ক্রমশ বড় হতে থাকে এবং দ্রুত পাতা ঝলসে যেতে শুরু করে। একই সাথে তা গমের শীষেও ছড়িয়ে পরতে থাকে এবং ফলের পুরোটাই সাদা হয়ে যেতে থাকে। এভাবে অতিদ্রুত পুরো ক্ষেতের গমের শিষ শুকিয়ে নষ্ট হয়ে যায়। কৃষি বিশেষজ্ঞদের মতে, শীতের প্রকোপ কমের মধ্যে বৃষ্টিপাতের ঘটনা ঘটলে ব্লাস্টের ছত্রাকের সংক্রমণ বৃদ্ধি পায়। পাশাপাশি তাপমাত্রার সাথে অস্বাভাবিক হারে আদ্রতার ঘটনা ঘটলেও এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। গত বছর ভোলাসহ আক্রান্ত জেলাগুলোতে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার তারতম্য ছিল প্রায় শতভাগের কাছাকাছি।
 
সর্বশেষ সংবাদ
  • হাওর অঞ্চলে ৫ লাখ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেবে সরকারআ’লীগ কাউকে তোষামোদী করে নির্বাচনে আনবে না : সিলেটে খাদ্যমন্ত্রীরাজনৈতিক চাপে রুয়েট রেজিস্ট্রারের পদত্যাগ !ঢাকা-থিম্পু উন্নয়নের জন্য একযোগে কাজ করার ব্যাপারে যৌথ বিবৃতি‘অসাম্প্রদায়িক আলেমদেরও একশ্রেণির বামপন্থী জনবিচ্ছিন্ন করে রাখতে চায়’মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী একজন দেশ প্রেমিকের স্মৃতিকথা- ‘আমি ছোট্ট নৌকা দিয়ে তাহিরপুরে পৌছাই’ : রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভুটানে লাল গালিচা অভ্যর্থনা বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে ৫ চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরআজ ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস, বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণীপ্রধানমন্ত্রী ৩৩৯ জন ক্রীড়াবিদকে নিজহাতে পুরস্কৃত করলেনশপথ নিয়েছেন নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য জয়া সেন গুপ্তাবাংলাদেশ ও ভারতের নৌ-প্রটোকলে যুক্ত হতে যাচ্ছে ভুটানরাজধানীর মগবাজার-মৌচাক ফ্লাইওভার নির্মাণে ফের ব্যয় বাড়লোআজ দেশের ১৭৪টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোটগ্রহণ বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির বাংলা নববর্ষের সংবর্ধনান্যাম ফ্লাট এমপিরা ব্যবহার না করলে, তাদের বরাদ্দ বাতিল : প্রধানমন্ত্রীরাজধানীসহ সারাদেশে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় নববর্ষ উদযাপিত হয়েছে : আইজিপিসিলেটে নিহত ২ ছাত্রলীগ নেতাকে প্রধানমন্ত্রীর ২০ লক্ষ টাকা অনুদানকওমি শিক্ষা সনদের প্রজ্ঞাপন জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়
  • হাওর অঞ্চলে ৫ লাখ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেবে সরকারআ’লীগ কাউকে তোষামোদী করে নির্বাচনে আনবে না : সিলেটে খাদ্যমন্ত্রীরাজনৈতিক চাপে রুয়েট রেজিস্ট্রারের পদত্যাগ !ঢাকা-থিম্পু উন্নয়নের জন্য একযোগে কাজ করার ব্যাপারে যৌথ বিবৃতি‘অসাম্প্রদায়িক আলেমদেরও একশ্রেণির বামপন্থী জনবিচ্ছিন্ন করে রাখতে চায়’মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী একজন দেশ প্রেমিকের স্মৃতিকথা- ‘আমি ছোট্ট নৌকা দিয়ে তাহিরপুরে পৌছাই’ : রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভুটানে লাল গালিচা অভ্যর্থনা বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে ৫ চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরআজ ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস, বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণীপ্রধানমন্ত্রী ৩৩৯ জন ক্রীড়াবিদকে নিজহাতে পুরস্কৃত করলেনশপথ নিয়েছেন নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য জয়া সেন গুপ্তাবাংলাদেশ ও ভারতের নৌ-প্রটোকলে যুক্ত হতে যাচ্ছে ভুটানরাজধানীর মগবাজার-মৌচাক ফ্লাইওভার নির্মাণে ফের ব্যয় বাড়লোআজ দেশের ১৭৪টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোটগ্রহণ বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির বাংলা নববর্ষের সংবর্ধনান্যাম ফ্লাট এমপিরা ব্যবহার না করলে, তাদের বরাদ্দ বাতিল : প্রধানমন্ত্রীরাজধানীসহ সারাদেশে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় নববর্ষ উদযাপিত হয়েছে : আইজিপিসিলেটে নিহত ২ ছাত্রলীগ নেতাকে প্রধানমন্ত্রীর ২০ লক্ষ টাকা অনুদানকওমি শিক্ষা সনদের প্রজ্ঞাপন জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়
উপরে